Logo
Logo
×

জাতীয়

বৃষ্টির পর ঢাকার বাতাসের মান ‘গ্রহণযোগ্য’

Icon

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ২৬ জুন ২০২৪, ১২:০২ পিএম

বৃষ্টির পর ঢাকার বাতাসের মান ‘গ্রহণযোগ্য’

ছবি : সংগৃহীত

যানবাহনের ধোঁয়া, বালুকণা আর বৃষ্টিহীন আবহাওয়ার কারণে ঢাকার বায়ুদূষণের মাত্রা বেড়েই চলছে। মাঝেমধ্যে বৃষ্টির কারণে ঢাকার বাতাসের মান কিছুটা উন্নতি হয়। আজ সকালের বৃষ্টির পর রাজধানীর ঢাকার বাতাসের মানকে ‘মাঝারি’ বা ‘গ্রহণযোগ্য’ পর্যায়ে উন্নিত হয়েছে।

বুধবার (২৬ জুন) সকাল ৮টা ৫৫ মিনিটে একিউআই স্কোর ৭৬ নিয়ে বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় ২০তম অবস্থানে রয়েছে ঢাকা।

পাকিস্তানের লাহোর, ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোর কিনশাসা ও ভারতের নয়া দিল্লি যথাক্রমে ১৮৯, ১৮২ ও ১৭০ একিউআই স্কোর নিয়ে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে।

একিউআই স্কোর ৫০ থেকে ১০০-এর মধ্যে থাকলে তাকে ‘মাঝারি’ বা ‘গ্রহণযোগ্য’ পর্যায় হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

১০১ থেকে ১৫০-এর মধ্যে হলে বাতাসের মান ‘সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’, ১৫১ থেকে ২০০-এর মধ্যে একিউআই স্কোরকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ মনে করা হয়।

২০১ থেকে ৩০০-এর মধ্যে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ বলা হয়, ৩০১+ একিউআই স্কোরকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।

বাংলাদেশে একিউআই নির্ধারণ করা হয় দূষণের পাঁচটি বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে। সেগুলো হলো বস্তুকণা (পিএম১০ ও পিএম২.৫), এনও২, সিও, এসও২ ও ওজোন (ও৩)।

দীর্ঘদিন ধরে বায়ুদূষণে ভুগছে ঢাকা। এর বাতাসের গুণমান সাধারণত শীতকালে অস্বাস্থ্যকর হয়ে যায় এবং বর্ষাকালে কিছুটা উন্নত হয়।

২০১৯ সালের মার্চে পরিবেশ অধিদপ্তর ও বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ঢাকার বায়ুদূষণের তিনটি প্রধান উৎস হলো ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলো।

ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডব্লিউএইচও)-এর তথ্য অনুসারে, বায়ুদূষণের ফলে স্ট্রোক, হৃদরোগ, ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ, ফুসফুসের ক্যানসার এবং তীব্র শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণের কারণে মৃত্যুহার বৃদ্ধি পেয়েছে। এর ফলে বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর আনুমানিক ৭০ লাখ মানুষ মারা যায়।

যুগের চিন্তা ২৪ কর্তৃক প্রকাশিত
ই-মেইল: [email protected]

অনুসরণ করুন