Logo
Logo
×

বিশেষ সংবাদ

ভাষা আন্দোলনের তৃতীয় দফা এখনো পূরণ হয়নি

Icon

অনলাইন

প্রকাশ: ২০ মে ২০২৪, ০৬:০৩ পিএম

ভাষা আন্দোলনের তৃতীয় দফা এখনো পূরণ হয়নি

১৯৪৭ সালে ভ্রান্ত দ্বিজাতি তত্তে¡র ভিত্তিতে এই উপমহাদেশ ভাগ হয়। আর এর মাধ্যমেই পাকিস্তান নামক রাষ্ট্রটি জন্ম হয়। পাকিস্তান রাষ্ট্র হওয়ার পেছনে বাংলা ভাষাভাষী এই অঞ্চলের মুসলমানদের বড় ভ‚মিকা ছিল। সে সময় পারিপার্শ্বিক অবস্থা বুঝে বা না বুঝেই হোক আমাদের নেতৃবৃন্দ পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করেছেন এবং পাকিস্তার রাষ্ট্র কায়েম করেছেন। এই পাকিস্তান রাষ্ট্র কায়েম করার অল্প কিছু দিনের মধ্যেই বঙ্গবন্ধুসহ যারা পাকিস্তান আন্দোলনের সাথে সক্রিয় ছিলেন তাদের অনেক নেতাই অনুধাবন করেন, এটি একটি বড় ধরনের ভুল হয়েছে। বাঙালির মাতৃভাষা আক্রান্তই হলো পাকিস্তান সৃষ্টির ভুলের মাশুল। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর ১৯৪৮ সালেই পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে উর্দুকেই চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা শুরু হয়। পাকিস্তানের পক্ষ থেকে আমাদের ওপর প্রথম আক্রমণ আসে ভাষার ওপর। বাঙালি জাতীয়তাবোধ জাগ্রত হওয়ার ক্ষেত্রে ভাষার ওপর এই ধাক্কা বিরাট উপাদান হিসেবে কাজ করেছিল। তখন আমাদের সব কিছুর ওপর একের পর এক হামলা আসতে শুরু করলো। পঞ্চাশের দশকের শেষে এবং ষাটের দশকের শুরুতে রবীন্দ্র সংগীতের ওপর হামলা আসে এবং রবীন্দ্র সংগীত গাওয়া যাবে কিনা এ নিয়ে বিরোধিতা শুরু হয়। সে সময় যারা বাংলা ভাষার জন্য আন্দোলন করলেন তাদের ভারতের দালাল হিসেবে গালাগালি করা শুরু হয়। অনেকে জেল-জুলুম, অত্যাচার-নিপীড়ন এবং উৎপাতের শিকার হয়েছেন। পরবর্তী পর্যায়ে ভাষা আন্দোলনে যারা শহীদ হলেন অর্থাৎ তাদের বুকের তাজা রক্ত দানের প্রেক্ষিতে স্বাধীনতার চেতনা জাগ্রত হয় ও পরে আমরা স্বাধীনতা লাভ করি। ভাষাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্রের জন্ম বড় অর্জন। ১৯৪৮ সাল থেকে শুরু করে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত ভাষা আন্দোলনের মূলত তিনটি দাবি ছিল। এই তিনটি দাবিতে আন্দোলনকারীরা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে রাস্তায় নেমে এসেছিলেন। তৎকালীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবন থেকে মিছিল বের হয়েছিল। সেই মিছিলেই দাবি তিনটি ছিলÑ এক. রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই, দুই. রাজবন্দিদের মুক্তি চাই, ৩. সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু চাই। ভাষা আন্দোলনের ব্যানার-প্ল্যাকার্ডে মূলত এই তিনটি ¯েøাগানই ছিল। ওই তিনটি দাবির মধ্যে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের ১৯৭২ সালের সংবিধানে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলাকে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। দ্বিতীয় দাবি রাজবন্দিদের মুক্তির বিষয়টি তো আগেই ফয়সালা হয়েছে। তাদের আমরা ভাষাসৈনিক হিসেবে সম্মান করেছি। ভাষা আন্দোলনের তিনটি দাবির মধ্যে ওই দুটি দাবি সম্পূর্ণরূপে পূরণ হয়েছে। কিন্তু তৃতীয় দাবিটি সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু বা ব্যবহার বাস্তবায়ন হয়নি। ভাষার মাধ্যমে একটি রাষ্ট্র পাওয়ার পর বাংলা ভাষাকে যেভাবে সর্বস্তরে চালু করার কথা ছিল তা ততটা হয়নি। ভাষা নিয়ে আমাদের জাতীয় রাজনীতিতে অনেকের যে অভিপ্রায় ছিল, আমরা তার ততটা পূরণও করতে পারিনি। আমাদের প্রধান প্রধান ক্ষেত্র যেখানে বাংলা ভাষা চালু করার কথা ছিল তা হয়নি। আইন-আদালত, বিশেষ করে উচ্চতর আদালতে বাংলা ভাষার প্রয়োগ হচ্ছে না। অবশ্য দুই-একজন আইনজীবী বাংলায় রায় দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। মামলার রায়গুলো যাদের ওপর বর্তায় অর্থাৎ বাদী এবং বিবাদী উভয়েই বাঙালি। কিন্তু তারপরও সেখানে বাংলা ভাষার প্রয়োগ নেই। এমন অনেক লোক আছেন, যারা বাংলাও ঠিক মতো বোঝে না, তাদের জন্য রায় লেখা হয় ইংরেজিতে। আদালতে বাংলা ভাষা প্রয়োগ না হওয়া অত্যন্ত দুঃখজনক। আমাদের সবচেয়ে শঙ্কার বিষয় দেশে উচ্চশিক্ষায় বাংলা ভাষার ব্যবহার নেই। আমি যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম, তখনই অনেক বেশি বাংলা ভাষা ব্যবহার হয়েছে।

যুগের চিন্তা ২৪ কর্তৃক প্রকাশিত
ই-মেইল: [email protected]

অনুসরণ করুন